Message Mizanur Rahman Azhari Pdf Download

message mizanur rahman azhari pdf ম্যাসেজ মিজানুর রহমান আজহারি Pdf download

ম্যাসেজ আধুনিক মননে দ্বীনের ছোঁয়া Pdf Download by মিজানুর রহমান আজহারি | Message Mizanur Rahman Azhari pdf download free

ক্যাটাগরিঃ ইসলামিক বই
প্রকাশনীঃ গার্ডিয়ান
দামঃ 275 TK
নাসিহার প্রকৃত অর্থ কোনো কিছুকে দোষত্রুটি ও অভ্যন্তরীণ ময়লা-আবর্জনা থেকে মুক্ত করা। ঠিক ম্যাসেজ “বইটি ছোট্ট একটা নাসীহা বা পথপ্রদর্শক মাত্র।
সুরাহ ফাতিহা’র প্রতিটি আয়াত এবং শব্দের যে কত ব্যাপক অর্থ রয়েছে, আল্লাহর প্রতিটি শব্দ নির্বাচন যে কত সুক্ষ্ণ, আয়াতগুলো যে কত সুন্দর ভাবে ভারসাম্য রক্ষা করে তৈরি করা—তা তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন প্রথম অধ্যায়ে।
এরপরে আসে দুয়ার অধ্যায়,আমাদের সকল যাবতীয় সমস্যায় দুয়ার চমকপ্রদ সব কার্যাবলী।
কীভাবে অন্ধকারের অতলে ডুবে থাকা মানুষটি দীপ্তিময় আকাশের চূড়ায় পৌঁছে গেলেন?
কেমন ছিল তাঁর শাসন-ব্যবস্থা, রণকৌশল, যার আদলে তিনি অর্ধ পৃথিবীতে খিলাফার পতাকা ছড়িয়ে দিয়েছিলেন?
হযরত উমর (রা) অসাধারণ সব কৃত্বিত্ব নিয়ে ৩য় অধ্যায় উমরঃ দারাজ দিল।
এর পরবর্তীতে আসে কষ্টের পর স্বস্তি অধ্যায়।
যা আমাদের শিখিয়ে দেয় বিশ্বাসী, আশাবাদী, ভালোবাসায় পরিপূর্ণ মানুষ ব্যর্থ হয় না এবং হতাশাগ্রস্তও হয় না।
সুখ-দুঃখ জীবনেরই অংশ, এ জগতের এর কোনোটিই স্থায়ী নয়।
আমাদের যত সমস্যার জন্যে আমাদের পরিবার যতটা গুরুত্বপূর্ণ, ঠিক আমাদের সমাজ ব্যবস্থা,ধর্মীয় বিধিমালা এসবের জন্যে মসজিদও ততটা গুরুত্বপূর্ণ। তবে মসজিদ সমূহ আজ কত অবহেলিত তার বিশদ আলোচনা করেছেন, এবং তা প্রোডাক্টিভ করে তোলার সমাধান ও দিয়েছেন বইয়ে।
প্রত্যেকটা অধ্যায়ের মধ্যে আমার এই অধ্যায়টাই সবচেয়ে বেশি আকর্ষনীয় লেগেছে।
এর পরপরই লেখক ফুটিয়ে তুলেছেন ইসলামের ব্যসিক কনচেপ্টগুলো যেগুলো সেল্ফ ইম্প্রুভমেন্টের জন্যে খুব জরুরী।
আমাদের দ্বারা কি অন্য কেউ কষ্ট পেতে পারে,তা নিয়ে আমাদের ভাবনা কতটুকু?
সবশেষে আসে চিরন্তন সেই আদিগন্ত অনন্তের কথা,যেখানে ফিরে যেতে হবে সবাইকে।
বইটির ছোট্ট ছোট্ট কুরআনের উদ্ধৃতি,সাহাবীদের উক্তি,সালাফদের কথা এবং বিভিন্ন শিক্ষণীয় কথামালা বইটিকে করে তুলছে চমকপ্রদ।
একজন যুবকের সুপ্ত ঈমানকে উদ্দীপ্ত করতে বা কক্ষপথহারা ব্যাক্তিকে ফিরিয়ে আনতে কিংবা অন্ধকার হৃদয়ে আলোর প্রদীপ জালিয়ে দিতে পারে এই “ম্যাসেজ”।
I have already read my 12 messages,Now Turn is Your’s,Read Your Unread messages.

শবে মিরাজ:

(۲. حكم الاحتفال بليلة الإسراء والمعراج) الحمد لله والصلاة والسلام على رسول الله وعلى آله وصحبه-

অতঃপর আমরা এ ব্যাপারে নিঃসন্দেহ যে, মি’রাজের পবিত্র ঘটনা আল্লাহ্র মহান নিদর্শন সমূহের অন্যতম, যা রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর রিসালাতের সত্যতার একটি জ্বলন্ত প্রমাণ এবং আল্লাহর দরবারে রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর উচ্চতম মর্যাদার প্রতীক। সাথে সাথে এটি আল্লাহ রব্বল আলামীনের অপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্ষমতা ও সৃষ্টিকুলের উপর তার নিরংকুশ একাধিপত্যের দলীলও বটে। আল্লাহ বলেন,

سبحان الذي أسرى بعبده ليلا من المسجد الحرام إلى المسجد الأقصى الذي باركنا حوله لتريه من آياتنا إنه هو السميع البصير (الإسراء 1)-

মহাপবিত্র সেই সত্তা, যিনি স্বীয় বান্দা (মুহাম্মাদ)-কে (কা’বার) মসজিদুল হারাম হ’তে (যেরুজালেমের) মসজিদুল আকৃছা পর্যন্ত রাত্রিকালে ভ্রমণ করিয়েছেন- যে মসজিদের চতুস্পৰ্শকে আমরা বরকতমণ্ডিত করেছি, যাতে আমরা আমাদের কিছু নিদর্শন তাকে দেখাতে পারি। নিশ্চয়ই তিনি সর্বশ্রোতা ও সর্বদ্রষ্টা (ইসরা/বনু ইসরাঈল ১৭/১)।

এতদ্ব্যতীত রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) হ’তে অবিরতধারায় বহু বর্ণনা এসেছে যে, তাঁকে আসমানে নিয়ে যাওয়া হ’ল এবং আকাশের দরজা সমূহ তাঁর জন্য উন্মুক্ত করা হ’ল। তিনি সপ্তম আকাশ অতিক্রম করলেন। অতঃপর আল্লাহ রব্বল আলামীন তাঁর সাথে কথা বললেন ও পাঁচ ওয়াক্ত ছালাত ফরয করে দিলেন।

আল্লাহ প্রথমে ৫০ ওয়াক্ত ছালাত ফরয করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর বারংবার কাতর অনুরােধে অবশেষে পাঁচ ওয়াক্ত ফরয করা হয়। অতএব ফরয হিসাবে তা পাঁচ ওয়াক্ত হলেও পুণ্যের হিসাবে তা পঞ্চাশ ওয়াক্তের সমান। কেননা (আল্লাহ্র ঘােষণা অনুযায়ী) প্রতিটি পুণ্যকর্ম তার দশগুণ ছওয়াবের সমতুল্য (আন’আম ৬/১৬০)। অতএব সেই মহান সৃষ্টিকর্তার অসংখ্য নেমতের জন্য যাবতীয় প্রশংসা ও কৃতজ্ঞতা।

অথচ রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) এরশাদ করেছেন,

‘তােমরা ধর্মের ব্যাপারে বাড়াবাড়ি করা হতে বিরত থাক। কেননা এই বাড়াবাড়িই তােমাদের পূর্ববর্তী উম্মতদেরকে (ইহুদী-নাছারাকে) ধ্বংস করেছে।

তিনি আরও বলেন, তােমরা আমার প্রশংসায় বাড়াবাড়ি কর না, যেমন বাড়াবাড়ি করেছে খৃষ্টানরা ঈসা ইবনে মারিয়ামকে নিয়ে। আমি শুধুমাত্র তাঁর একজন বান্দা। অতএব তােমরা আমাকে বল, আল্লাহর বান্দা ও তাঁর রাসূল। বিস্ময় ও আশ্চর্যের বিষয় এই যে, বহুলােক খুব খুশীর সাথে ও যথেষ্ট কষ্ট স্বীকার করে এই সব বিদ’আতী মজলিসে যােগ দিতে আসে এবং তার সপক্ষে যুক্তি প্রদর্শন করে।

অথচ তারা সাপ্তাহিক জুম’আ ও দৈনন্দিন ফরয ছালাতের জামা’আত সমূহ হ’তে পিছিয়ে থাকে এবং এ সকল ব্যাপারে মােটেই মাথা ঘামায় না। এমনকি সে একবারও মনে করে না যে, সে একটা মহা অন্যায় কাজ করে চলেছে। নিঃসন্দেহে এটা তাদের দুর্বল ঈমানের পরিচায়ক এবং (শরী’আতের ব্যাপারে) অন্তদৃষ্টির অভাব ও রকমারি পাপাচার ও গুনাহের কাজে অভ্যস্ত হওয়ার ফলে তাদের অন্তরে যে মরিচা ধরে গেছে, এই সকল অপকর্ম তারই বাস্তব ফলশ্রুতি।.

আমরা আমাদের জন্য ও সকল মুসলমানের জন্য আল্লাহ্র নিকটে এসব থেকে আশ্রয় প্রার্থনা করছি। ‘মীলাদ’ সমর্থক লােকদের মধ্যে কিছু লােক এমন ধারণা রাখে যে, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) স্বয়ং মীলাদের মাহফিলে হাযির হন এবং সেজন্য তারা রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর সম্মানে তাঁকে অভ্যর্থনা জানিয়ে উঠে দাঁড়িয়ে (কিয়াম করে) সালাম জানায় (যেমন, ইয়া নবী সালামু আলায়কা)। এটাই হ’ল সবচাইতে চরম মূর্খতা ও ভিত্তিহীন কর্ম। কেননা রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) কিয়ামতের পূর্বে কবর থেকে বাইরে আসতে পারেন না। পারেন না কোন মানুষের সাথে মিলিত হ’তে কিংবা তাদের কোন মজলিসে যােগদান করতে। তিনি কিয়ামত পর্যন্ত কবরেই থাকবেন এবং তাঁর পবিত্র রূহ তার প্রতিপালকের নিকট মহা সম্মানিত ইল্লীঈনে থাকবে। যেমন সূরায়ে মুমিনূনে এ সম্পর্কে এরশাদ হয়েছে-  ‘অতঃপর তােমরা অবশ্যই মৃত্যুমুখে পতিত হবে। অতঃপর তােমরা কিয়ামত দিবসে অবশ্যই পুনরুত্থিত হবে’ (মুমিনূন ২৩/১৫-১৬)। রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) বলেছেন,  দিন সর্বপ্রথম আমারই কবর বিদীর্ণ হবে এবং আমিই প্রথম শাফা’আত করব ও আমারই শাফা’আত সর্বপ্রথম কবুল করা হবে।

অতএব তার উপরেই বর্ষিত হৌক তাঁর প্রতিপালকের সর্বোত্তম অনুগ্রহ ও শান্তি! উপরােক্ত আয়াতে কারীমা ও হাদীছ ছাড়াও এই মর্মে অন্যান্য বহু আয়াত ও হাদীছ দ্বারা এটাই প্রমাণিত হয় যে, রাসূলুল্লাহ (ছাঃ) সহ দুনিয়ার সমস্ত মৃতব্যক্তি কেবলমাত্র কিয়ামতের দিন কবর হ’তে উঠবেন; এর পূর্বে নয়। এ ব্যাপারে মুসলিম জাহানের সমস্ত আলেমই একমত, কারু কোন দ্বিমত নেই। অতএব প্রত্যেক মুসলমানকে এই সকল বিদ’আত হ’তে সতর্ক থাকা প্রয়ােজন এবং কিছু সংখ্যক মূর্খ ও তাদের অনুগামীরা যেসকল বিদ’আত ও কল্পিত ধর্মানুষ্ঠান সমূহ আবিষ্কার করেছে, যার সপক্ষে আল্লাহ রব্দুল আলামীন কোন দলীল অবতীর্ণ করেননি- ঐ সকল অপকর্ম হ’তে সকলের সাবধান থাকা উচিত। والله المستعان وعليه التكلان ولا حول ولا قوة إلا بالله – অতঃপর অনুগ্রহ ও শান্তি বর্ষিত হৌক রাসূলুল্লাহ (ছাঃ)-এর উপর। আর এটা হ’ল আল্লাহর নৈকট্য লাভের উৎকৃষ্ট উপায় এবং সকর্ম সমূহের অন্যতম।

Leave a Reply

Your email address will not be published.